The army is giving food from house to house from their own rations

The army is giving food from house to house from their own rations. The army is delivering food items from the rations of the soldiers to the homes of the destitute and helpless people who have been affected by the lockdown.

In remote mountainous areas, where vehicles cannot reach, soldiers walk from house to house delivering relief supplies.

The army is giving food from house to house from their own rations pic

In addition, the army members are working to bring relief to the poor, helpless and middle class families in remote rural areas with dignity.

Yesterday, army members reached at least 15 days’ food assistance to several hundred families. Across the country, the administration is working together to deal with the corona virus (Covid-19). Army personnel are working 24 hours a day or night to fight the Corona virus.

In areas where helpless people are screaming for food, relief is being provided on the shoulders of the common people at their doorsteps.

See details below …

নিজেদের রেশন থেকে ঘরে ঘরে খাবার দিচ্ছে সেনাবাহিনী

সৈনিকদের রেশনের অংশ থেকে বেঁচে যাওয়া খাদ্য সামগ্রী লকডাউনে বিপর্যস্ত হয়ে পড়া দুঃস্থ ও অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি ত্রাণ হিসেবে পৌঁছে দিচ্ছে সেনাবাহিনী। দুর্গম পাহারি অঞ্চলে যেখানে গাড়ি যেতে পারছেনা সেখানে সৈনিকরা পায়ে হেটে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ত্রাণ সামগ্রি পৌছে দিচ্ছে ।

এছাড়া প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে দরিদ্র অসহায় ও মধ্যবৃত্ত পরিবারের মাঝে সম্মানের সাথে ত্রাণ পৌছে দেওয়ার কাজ করে যাচ্ছে সেনা সদস্যরা ।

গতকাল সেনা সদস্যরা কয়েকশ পরিবারের কাছে পৌঁছে দেয় অন্তত ১৫ দিনের খাদ্য সহায়তা। সারা দেশে প্রশাসন একযোগে কাজ করে যাচ্ছে করোনা ভাইরাস (কবিড-১৯) মোকাবেলায় । করোনা ভাইরাস মোকাবেলায়  দিনে কিংবা রাতে ২৪ ঘন্টা সেনা সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছে ।

যেসব এলাকায় অসহায় মানুষেরা খাবারের জন্য হাহাকার করছে তাদের জন্য টহলরত গাড়ি থেকে ত্রাণ নামিয়ে কাঁধে করে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায়।

জানা যায়, গত মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) সকালে নগরীর বায়েজীদ এলাকায়  সৈনিকদের রেশন থেকেই ব্যবস্থা করা ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছে সেনা সদস্যরা । অন্তত ১৫ দিনের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে কয়েকশ পরিবারের মাঝে । এছাড়া রয়েছে কর্মকর্তাদের আর্থিক সহায়তা’ও।

কমান্ডার লে কর্ণেল সারোয়ার হোসেন বলেন, আমরা প্রত্যেকের বাড়ি বাড়ি এই রেশনগুলো পৌঁছে দিচ্ছি। আশা করি দশ-পনের দিন ভালো মতো চলতে পারবে ।

ত্রাণ সহায়তার পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে’ও দিনভর কাজ করে যাচ্ছে সেনাবাহিনীর একাধিকটি টিম।

জানা যায়, অনেক মধ্যবৃত্ত পরিবার রয়েছে যারা লজ্জায় ও সম্মানের ভয়ে জনসম্মুখে ত্রাণ চেয়ে হাত পেতে নিতে পারছে না । কিন্তু বেঁচে থাকা কষ্টকর হয়ে যাচ্ছে । এসব অসহায় পরিবারের পাশে দাড়িয়েছে দেশের বীর সৈনিকেরা । নিজেদের জীবন বিপন্ন রেখে রাতের আধারে কিংবা লুকিয়ে এসব মধ্যবৃত্ত পরিবারের মাঝে ত্রাণের খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিচ্ছে সেনা সদ্যরা ।

ঝড়-বৃষ্টির মাঝেও থেমে নেয় সেনা সদস্যরা । দেশের জন্য সর্বদায় জীবন দিতে প্রস্তুত এসব বীর সৈনিকেরা ।

এদিকে, জনবল সংকটে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছে পুলিশ। সারা দেশে অসংখ্য পুলিশ সদস্যরাও করোনা ভাইরাসে (কভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছে । বিশেষ করে গাজীপুরেই এক সাথে ২৩ জন পুলিশ কর্মকর্তা করোনা সংক্রমনে আক্রান্ত হয়ে জীবন – মরনের মাঝে দাঁড়িয়ে আছে ।

দেশকে রক্ষা করতে নিজেদের জীবন ও পরিবারের কথা না ভেবে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে পুলিশ ও সেনাবাহিনীসহ সকল পর্যায়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তাগণ । নিজেদের ও পরিবারের কথা না ভেবে ডাক্তার ও নার্সেরা যেভাবে দেশকে রক্ষায় যোদ্ধ করছে করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) এর সাথে ঠিক সেভাবে প্রশাসনের সদস্যরাও সম্মিলিতভাবে কাজ করে যাচ্ছে ।

সিএমপি উপ কমিশনার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, আমাদের কিছু ফোর্সকে কোয়ারেন্টাইন ও কিছু আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে । এছাড়া আমরা যারা  কাজ করছি তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছি ।

The army is giving food from house to house from their own rations

It was reported that on Tuesday (April 21) morning, the army had distributed relief supplies from the ration of troops in the Bayazid area of ​​the city. At least 15 days of food items were distributed among several hundred families. There is also financial support for the officers.

Commander Lt. Col. Sarwar Hossain said, “We are delivering these rations to everyone’s house.” I hope ten-fifteen days will go well.

In addition to providing relief assistance, several teams of the army are working all day to ensure social distance.

It is known that there are many middle class families who are not able to reach out to the people for relief out of fear of shame and honor. But survival is becoming harder. The heroic soldiers of the country stand beside these helpless families.

Army men are delivering food items of relief to these middle-class families by hiding their lives at night or hiding them.

In the midst of the storm, the army stopped. These brave soldiers are ready to give their lives for the country.

Meanwhile, police are struggling to control traffic in the manpower crisis. Numerous policemen across the country have also been infected with the Corona virus (Covid-19). In Gazipur in particular, 23 police officers have been infected with corona and are on the verge of death.

Administrative officials at all levels, including the police and the army, are working together to protect the country without thinking of their own lives and families. Members of the administration are working together with the corona virus (Covid-19) in the same way that doctors and nurses are fighting to protect the country without thinking about themselves and their families.

CMP Deputy Commissioner Mohammad Shahidullah said, “Some of our forces have been sent to Quarantine and some to Isolation. Besides, those of us who are working are working for the country with utmost effort.

 Source:  Somoy TV News

Corona VirusLive UpdateBD

 World update of the Corona virus

More News:

There are 170 doctors in Bangladesh suffering from corona disease

The landlord drove the tenant out of the house in the Corona crisis

The landlord removed the woman doctor from home

Leave a Comment